ফেসবুক থেকে আয় করার কৌশল

ফেসবুক ভিত্তিক বিজনেস খুবই জনপ্রিয় এখন।বিশেষ করে বাংলাদেশের অনলাইন বাজারে ফেসবুক ভিত্তিক বাজার সরগরম হয়ে উঠছে।

ফেসবুক হোম পেজে ঢুকলেই আমরা বিভিন্ন ফেসবুক পেজের বিজ্ঞাপন দেখতে পাই।আবার ফেসবুক পেজ থেকে পন্য বিক্রয়ের বিজ্ঞাপন দেখি।ফেসবুক পেজ প্রমোট করে এফ কমার্স বা ফেসবুক পেজ বিজিনেস এখন বেশ লাভবান ও জনপ্রিয়।

আরিফ হাসান,তিনি পড়াশোনা করেছেন নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাবসা প্রশাসন বিভাগে। টেকনোলজি নিয়ে বিভিন্ন ব্লগে বেশ লেখালেখি করেন।চেষ্টা করেন মানুষকে টেকনোলজি বিষয়ে জানানোর।

আরিফ হাসান এখন শুধু এফ কমার্স বা ফেসবুক কমার্স নিয়েই লেখালেখি করেন।
কথা হলো আরিফ হাসানের সাথে,
তিনি জানিয়েছেন কিভাবে এফ কমার্সে সফল হওয়া যায়।

 

  •  এফ কমার্স বা ফেসবুক বিজনেস কি?  ফেসবুক বলতে আমরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ছবি আপলোড দেওয়া বা নিজের অনুভূতি প্রকাশ করাকেই বুঝি। কিন্তু ফেসবুকের মাধ্যমেও আমরা বড় ধরনের একজন ব্যবসায়ী হতে পারি সেটা অনেকেই জানিনা বা জানলেও কাজ করার চেষ্টা করিনা। শুধু বিনোদনের মাধ্যম নয় ফেসবুকের মাধ্যমে এখন কোম্পানী বা ব্যবসায়ীদের বড় অংকের অর্থ বেঁচে যাচ্ছে।ফেসবুকের খুব খরচেই আপনি ভালো ব্যবসা করতে পারবেন।এই নিয়েই লেখালেখি করেন বা মানুষকে বোঝানোর চেষ্টা করেন বলে জানান আরিফ হাসান।
  • পরিসংখ্যানঃ প্রথম আলোর সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনের বলা হয়েছে এবং ই-ক্যাবের তথ্যমতে বর্তমানে বাংলাদেশে ৫০০০ এফ কমার্স ভিত্তিক ব্যবসায়ীক উদ্যোক্তা রয়েছেন। তবে এর সংখ্যা আরও বেশি হতে পারে।বর্তমানে দেশে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে ইন্টারনেটের স্পিড।ধারনা করা যায় আগামীতে বাংলাদেশে এফ কমার্স এর সম্ভাবনা আরও উজ্জল।
  • সম্ভাবনাঃ ফেসবুক পেজ নির্ভর বা এফ কমার্স এর মাধ্যমে স্মার্ট ইনকামের সুযোগ রয়েছে সবার।এই ব্যবসায় মূলধন খুব কম লাগে।ঘরে বসেই আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন খুব সহজেই।কোন লস হওয়ার সম্ভাবনা নেই।বিদেশী ক্রেতাদের কাছেও পন্য বিক্রি করতে পারবেন।বিভাগীয় শহরগুলোতে এই ব্যবসা বেশি।কিন্তু জেলা শহর গুলোতে এফ কমার্স সম্পর্কে তরুন উদ্যোক্তাদের ধারনা দিতে পারলে এই ব্যবসার সম্ভাবনা অনেক প্রসস্থ।
  •  কিভাবে এই ব্যবসা শুরু করা যায়? ঃ ফেসবুক পেজ ভিত্তিক ব্যবসা শুরু করতে চাইলে আগে দেখা উচিত কোন পন্য মার্কেটিং করলে বেশি বিক্রি হবে।এমন কিছু পন্য ব্যবসার জন্য নির্বাচন করা উচিত যা ক্রেতাদের দরকার কিন্তু সহজে পাওয়া যায়না।তাহলে আপনার পন্য বেশি বিক্রি হবে ব্যবসায়িকভাবে অনেক বেশি সফল হবেন। যেকোন বয়সের যে কেউ এই ব্যবসা করতে পারবেন।মেয়েদের জন্য রয়েছে এই ব্যবসার বিশাল সম্ভাবনা।সদস্য পড়াশোনা শেষ করা বা চাকুরীরত অবস্থায় এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। সোর্সিং, প্রসেসিং, ডেলিভারি সবকিছুই দেশ ব্যাপী বা দেশের বাইরেও করা যাবে। ভাল পণ্য বা সেবা নিশ্চিত করলে ভাল করা খুবই সহজ।
  • ক্ষতি হওয়ার কারনঃ আপনি এই ব্যবসা শুরু করতে অবশ্যই ভালো মন মানসিকতা থাকতে হবে।কাস্টোমারের সাথে চিট করা যাবেনা।পন্যের মান নিয়ে ডুপ্লিকেট করা যাবেনা।পন্য অর্ডার দিলে ক্রেতাকে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্য না দিয়ে টালবাহানা করা যাবেনা।তাহলে আপনি এই ব্যবসায় লোকসান গুনতে হবে নিশ্চিত।

উপরের পরামর্শের জন্য টেক এবং এফ কমার্স 

লেখক আরিফ হাসান এর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here