বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ফেভারিট বাংলাদেশ!

মাশরাফি এবং বাংলাদেশ ক্রিকেট টিম।
ছবিঃ মাশরাফি বিন মর্তুজার নেতৃত্বে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।

স্পোর্ট ডেস্ক,সোনালী কন্ঠঃ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ফেভারিট বাংলাদেশ!বাংলাদেশের ক্রিকেটকে এখন আর তুচ্ছ তাচ্ছিল্য করে মন্তব্য করার সুযোগ নেই বাংলাদেশ ক্রিকেটের কঠোর সমালোচক ভারতীয় ক্রিকেটার বীরেন্দর শেওয়াগ বা ইংল্যান্ডের কোন ধারাভাষ্যকারের।বিশ্বকাপ ক্রিকেটে নতুন পরাশক্তি বাংলাদেশ।এইতো ২০০৬ সালেই ভারতকে হারিয়ে টুর্নামেন্ট থেকেই আউট করে দিয়েছিলো বাংলাদেশের টাইগাররা।

আর ২০১৫ বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ইংল্যান্ড ক্রিকেট টিম কে হারিয়ে বাংলাদেশ উঠে যায় কোয়ার্টার ফাইনালে। আর ইংলিশ শিবিরে নেমে আসে হতাশার অন্ধকার।

বাংলাদেশী ওপেনিং ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল
ছবিঃ বাংলাদেশের তারকা ক্রিকেটার ও বিশ্বের অন্যতম সেরা অপেনার তামিম ইকবাল।

শুধু এসব পরিসংখ্যান দিয়ে তো আর একটি ক্রিকেট দলের আন্তর্জাতিক পর্যায়ের শক্তি মূল্যায়ন করা হয়না।আগে যেখানে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান এর রানের গড় ছিলো সর্বোচ্চ ৩০ এর নিচে সেখানে এখন রান গড়ে এবং মোট রানে বিশ্বের সাবেক ক্রিকেট লিজেন্ডদের সম পর্যায়ে।বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ফেভারিট বাংলাদেশ!

আরও পড়ুনঃ মাশরাফিকে নিয়ে বিখ্যাতদের উক্তি। >   http://sonalikantha.com/মাশরাফিকে-নিয়ে-বিখ্যাত-ক/

আমরা যখন ক্রিকেট নিয়ে আলোচনা করতাম বিগত দশ বছর আগে।তখন ভাবতাম আমাদের দেশে যদি একজন সাঙ্গাকারা বা সৌরভ গাঙ্গুলির মত ব্যাটসম্যান থাকতো।অথবা আফ্রিদির মত অলরাউন্ডার থাকতো।তাহলে বাংলাদেশও অস্ট্রেলিয়া,দক্ষিণ আফ্রিকার মত দলকে হারানোর স্বামর্থ রাখতো।

বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফি ও তার সতীর্থ ক্রিকেটার।
ছবিঃ বাংলাদেশ জাতীয় দলের অধিনায়ক মাশরাফি ও তার সতীর্থ ক্রিকেটার।

 দশ বছর পর ঠিক এই মুহুর্তে আমাদেরও আছে আন্তর্জাতিক মানের বোলার,ব্যাটসম্যান, অলরাউন্ডার, উইকেটকিপার। আমাদের টাইগাররাও এখন ফাইনালে উঠতে শিখেছে একবার নয় বার বার।বিশাল টার্গেটের পেছনে ছুটে ফাইনাল জয় করার সক্ষমতা এখন বাংলার দামাল ছেলেদেরও হয়ে উঠেছে।বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ফেভারিট বাংলাদেশ!

বাংলাদেশের ক্রিকেটে আছে সাকিব আল হাসান এর মত বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার, তামিম ইকবাল এর মত বিশ্বের অন্যতম সেরা অপেনার,মাশরাফি বিন মর্তুজার মত লিজেন্ডারি বোলার,মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের মত ক্রিকেটার যিনি আন্তর্জাতিক ময়দানে প্রতিপক্ষের যমদূত হিসেবে আবির্ভাব হন।আমাদের রয়েছে বিশ্বের অন্যতম সেরা উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যান মুশফিকুর রহিম।

বিগত দশ বছর আগে বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের নামের পাশে সেঞ্চুরি চার/পাঁচের বেশি না দেখা গেলেও এখন একজন ব্যাটসম্যানের ব্যাক্তিগত সেঞ্চুরি রয়েছে ২০ টি পর্যন্ত।বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের রান আগে যেখানে দু হাজার এর বেশি দেখতামনা এখন বেশ ক’জন টাইগার ব্যাটসম্যান এর ব্যক্তিগত রান পাঁচ হাজারের বেশি।

যে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল বিশ্বকাপের মত বড় আসর গুলোতে স্রেফ নিয়ম রক্ষার জন্য অংশগ্রহণ করত। এখন সেই বাংলাদেশের ক্রিকেট যোদ্ধারা বিশ্বকাপ ট্রফি ঘরে তোলার স্বপ্নে বিভোর।ক্রিকেট জগতের রথি মহারথীদের কপালে দুশ্চিন্তার ভাঁজ ফেলতে শিখেছে টাইগাররা।

বাংলাদেশের ক্রিকেট খেলোয়াড়।
ছবিঃ বাংলাদেশ জাতীয় দলের গর্বিত ক্রিকেটাররা।

বিশ্বকাপ ক্রিকেট দ্বাদশ আসর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ইংল্যান্ড ও ওয়েলশে।আর তার কিছুদিন আগেই ত্রিদেশীয় টুর্নামেন্টের ফাইনালে সাবেক বিশ্বকাপ চ্যাম্পিয়ন ওয়েষ্ট ইন্ডিজকে ফাইনালে হারিয়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশের টাইগাররা।বিশ্বকাপ ক্রিকেটে ফেভারিট বাংলাদেশ!

তাই আইসিসি বিশ্বকাপ’২০১৯ প্রতিযোগিতায় এবারের নতুন পরাশক্তি যে বাংলাদেশ সেটার আগাম বার্তা দিয়েই ইংল্যান্ডে যাওয়ার প্রস্তুতি নিলো মাশরাফি, সাকিব,তামিম,মুশফিকরা।

আর সাথে আছে বাংলাদেশের ১৮ কোটি কন্ঠস্বর এবং ৩৬ কোটি হাত।মুখে বাংলাদেশের জয়ধ্বনী আর হাততালিতে উৎসাহ দিতে প্রস্তুত সমগ্র বাংলাদেশ। সবাই স্বীকার করতে হবে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে নতুন পরাশক্তি বাংলাদেশ!সেদিন হয় দ্বাদশ বিশ্বকাপেই দেখবে বিশ্ব ক্রিকেট।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here